বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে অপরাজিত থাকার রেকর্ডটা ধরে রাখল ভারত। ব্যাটিং এবং বোলিং দুই বিভাগেই দাপট দেখিয়ে সোমবার ওল্ড ট্রাফোর্ডে পাকিস্তানকে হারাল দলটি। বৃষ্টির বাগড়া দেওয়া ম্যাচে ভারত ডাক ওয়ার্থ লুইস মেথডে ম্যাচটা জিতে নিয়েছে ৮৯ রানে।

টস হেরে আগে ব্যাট করে রোহিত শর্মার ১৪০ রানে ভর করে ৫ উইকেটে ৩৩৬ রান করেছিল ভারত। জবাব দিতে নেমে বৃষ্টি বাঁধার আগে ৩৫ ওভারে ১৬৬ রান করতেই ৬ উইকেট হারিয়ে পরাজয় দেখছিল পাকিস্তান।

বৃষ্টি থামার পর দলটার সামনে নতুন লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪০ ওভারে ৩০২। অর্থাৎ বাকি ৫ ওভারে ১৩৬ রান করতে হতো। দলটি যোগ করতে পারল ৪৬ রান। ৬ উইকেটে ২১২ রানে থামে দলটি।

১৯৯২ বিশ্বকাপ থেকে দুই দলের মুখোমুখি লড়াই শুরু। এবার দিয়ে মোট সাতবার মুখোমুখি হলো দুই দল। ফলাফল: ভারত ৭–পাকিস্তান ০।

৪ ম্যাচে ভারতের জয় ৩টিতে। একটি ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যায়। সব মিলে ৭ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয় স্থানে রয়েছে কোহলির দল। তাদের সমান পয়েন্ট নিয়েও দ্বিতীয় স্থানে নিউজিল্যান্ড। আর এক ম্যাচ বেশি খেলে সবার ওপরে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

অন্যদিকে পাঁচ ম্যাচে এ নিয়ে তৃতীয় হার পাকিস্তানের। একটি ম্যাচ তাদের পরিত্যক্ত হয়েছিল। সব মিলে ৩ পয়েন্ট নিয়ে দশ দলের মধ্যে দলটার অবস্থান নবম।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে এদিন দলীয় ১৩ রানেই ওপেনার ইমাম-উল-হককে হারায় পাকিস্তান। ৭ রান করে বিজয় শংকরের বলে এলবিডব্লিউ হন বাঁ-হাতি ওপেনার। এরপর ফখর ও বাবর মিলে ১০৪ রান যোগ করলেন। তাতে পাকিস্তান দিচ্ছিল লড়াইয়ের বার্তা।

কিন্তু মুহূর্তেই ৪ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তান পথ হারায়। ১২ রানের ব্যবধানে বাবর, ফখর, মোহাম্মদ হাফিজ ও শোয়েব মালিকের উইকেট হারায় পাকিস্তান।

৪৮ রান করা বাবরকে দারুণ এক ডেলিভারিতে বোল্ড করে জুটি ভাঙেন কুলদীপ। পরের ওভারে ফিরিয়ে দেন ৬২ রান করা ফখরকে। এরপর ২৭তম ওভারের শেষ দুই বলে মোহাম্মদ হাফিজ (৯) ও শোয়েব মালিককে (০) ফিরিয়েছেন পান্ডিয়া। ম্যাচ থেকেও যেন ছিটকে যাওয়া দলটার।

অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদও ফিরলেন দ্রুত। বিজয় শংকরের করা ৩৫তম ওভারে ১২ রান করে বোল্ড হন তিনি। এরপর বৃষ্টির বাগড়া ও ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে যাওয়া। পাকিস্তানের জন্য ম্যাচটা আরো কঠিন হয়ে যায় তাতে।

শেষ পর্যন্ত ইমাদ ওয়াসিম ৪৬ ও শাবাদ খান ২০ রানে অপরাজিত ছিলেন। পরাজয়ের ব্যবধানটাই যা কমাতে পেরেছেন তারা। ভারতের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন কুলদীপ, পান্ডিয়া ও শংকর।

এর আগে টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানায় পাকিস্তানি অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। ক্ষুরধারহীন বোলিংয়ে শুরু থেকেই বিবর্ণ তারা। সুযোগ যা এসেছিল ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের ভুল বোঝাবুঝিতে। তাও কাজে লাগাতে ব্যর্থ। তবে দারুণ ব্যাটিং করেছেন ভারতীয় দুই ওপেনার রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুল। ওপেনিং জুটিতেই করেন ১৩৬ রান।

রাহুলকে ফিরিয়ে ওপেনিং জুটি ভাঙেন ওয়াহাব রিয়াজ। তবে দ্বিতীয় উইকেটে রোহিতের সঙ্গে আরও একটি দারুণ জুটি গড়েন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। স্কোর বোর্ডে ৯৮ রান যোগ করেন তারা। এরপর হাসান আলির বলে স্কুপ করতে গিয়ে ফাইন লেগে ধরা পড়েন রোহিত। তবে আউট হওয়ার আগে আরও একটি সেঞ্চুরি তুলেছেন তিনি। ১১৩ বলে করেছেন ১৪০ রান। ১৪টি চার ও ৩টি ছক্কায় এ রান করেন তিনি।

ক্যারিয়ারে এটা রোহিতের ২৪তম সেঞ্চুরি। দারুণ ছন্দে থাকা এ ব্যাটসম্যান শেষ পাঁচটি ইনিংসেই করেছেন পঞ্চাশোর্ধ রান। যার দুটি নিয়েছেন তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারে। মাত্র ৩৪ বলে নিজের হাফসেঞ্চুরি স্পর্শ করেছিলেন রোহিত। এরপর সেঞ্চুরি তুলতে বল খেলেন ৮৫টি। তবে ব্যক্তিগত ৩২ ও ৩৮ রানে দুই দুইবার রান আউট করার সহজ সুযোগ দিয়েছিলেন রোহিত। একবার তো দুই ব্যাটসম্যানই এক প্রান্তে ছিলেন। কিন্তু সে সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি পাকিস্তানিরা।

রোহিতের বিদায়ের পর স্কোরবোর্ড লম্বা করার দায়িত্ব নেন অধিনায়ক কোহলি। হার্দিক পান্ডিয়ার সঙ্গে করেন ৫১ রানের জুটি। এরপর অবশ্য আমিরের তোপে পড়ে দলটি। দ্রুত পান্ডিয়া ও সাবেক অধিনায়ক এমএস ধোনিকে হারায় তারা। খুব বেশিক্ষণ আর টিকতে পারেননি অধিনায়কও।

৬৫ বলে ৭৭ রানের ইনিংস খেলেন কোহলি। ৭টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি। রাহুলের ব্যাট থেকে আসে ৫৭ রান। পাকিস্তানের পক্ষে ৪৭ রানের খরচায় ৩টি উইকেট নিয়েছেন আমির।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত: ৫০ ওভারে ৩৩৬/৫ (রাহুল ৫৭, রোহিত ১৪০, কোহলি ৭৭, পান্ডিয়া ২৬, ধোনি ১, শঙ্কর ১৫*, কেদার ৯*; আমির ৩/৪৭, হাসান ১/৮৪, রিয়াজ ১/৭১, ইমাদ ০/৪৯, সাদাব ০/৬১, মালিক ০/১১, হাফিজ ০/১১)।

পাকিস্তান: ৩৫ ওভারে ১৬৬/৬ (ইমাম ৭, ফখর ৬২, বাবর ৪৮, হাফিজ ৯, সরফরাজ ১২, মালিক ০, ইমাদ ৪৬*, সাদাব ২০*; ভুবনেশ্বর ০/৮, বুমরাহ ০/৫২, শঙ্কর ২/২২, পান্ডিয়া ২/৪৪, কুলদিপ ২/৩২, চাহাল ০/৫৩)।

ফলাফল: বৃষ্টি আইনে ভারত ৮৯ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: রোহিত শর্মা (ভারত)।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here