ম্যাডোনা, এক নামেই যাকে সারাবিশ্ব চেনে। তিনি আমেরিকান পপ গায়িকা, অভিনেত্রী ও নৃত্যশিল্পী। বিশ্বব্যাপী তার গানের অ্যালবাম বিক্রি হয়েছে তিনশ’ মিলিয়ন কপিরও অধিক। অগণিত ভক্তের পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে ম্যাডোনার ১ কোটি ৪০ লাখ ফলোয়ারও আছে।

এরপরেও, ইনস্টাগ্রাম সংস্কৃতির কঠোর সমালোচনা করেছেন কিংবদন্তি নারী পপ তারকা ম্যাডোনা। ম্যাডোনা মনে করেন ইনস্টাগ্রাম মানুষকে মন ছোট করিয়ে দেয়। ম্যাডোনা বিশেষভাবে তরুণদের ওপর এর ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে সতর্ক করেছেন।

‘আপনি অন্যের সঙ্গে নিজেকে তুলনা করার একটা জালে আটকে যাচ্ছেন। আমার কী এমন হওয়া উচিত? এটা করা উচিত? ওরকম সাজপোশাক ব্যবহার করা উচিত?’ ম্যাডোনা স্পষ্টতই দেখিয়ে দিয়েছেন বর্তমান যুগের দেখনদারি সংস্কৃতির সংকটকে।

‘ছবিটা কী আমাকে আরো জনপ্রিয় করে তুলবে, আরো সফল মনে হবে? মানুষ এখন অন্যের কাছ থেকে অনুমোদন পাওয়ার জন্য এক রকম দাস হয়ে গেছে। প্রচলিত মত ও নারী হিসেবে সমাজ আমার কাছে কী প্রত্যাশা করে, তা নিয়ে বিন্দুমাত্র আলোড়িত নই আমি এবং এক বিন্দুও ছাড় দেব না।

৬০ বছর বয়সী কুইন অব পপখ্যাত ম্যাডোনা নিজে সোস্যাল মিডিয়ার আগের যুগে বেড়ে উঠেছেন বলে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করেন। ‘ফোন, ইনস্টাগ্রাম ও সোস্যাল মিডিয়ার যুগের আগে শিল্পী হিসেবে বেড়ে উঠতে পেরেছি বলে আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি। নিজেকে শিল্পী হিসেবে বিকশিত করার সময় পেয়েছি। অন্যের সঙ্গে নিজেকে তুলনা করার বা অন্যে কী ভাবল, তা নিয়ে কোনো মানসিক চাপ অনুভব করতে হয়নি।’

সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে ম্যাডোনার চতুর্দশ স্টুডিও অ্যালবাম ‘মাদাম এক্স’। এ অ্যালবামে ম্যাডোনা হাজির হয়েছেন সমাজ সচেতন, শিল্পী মনের বিদ্রোহ নিয়ে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here