ইয়েমেনের পদত্যাগী ও পলাতক প্রেসিডেন্ট আব্দরাব্বু মানসুর হাদি তার পরিবার-পরিজন নিয়ে সৌদি আরব থেকে আমেরিকায় চলে গেছেন। চিকিৎসার অজুহাত দেখিয়ে তিনি সৌদি আরব ত্যাগ করেছেন। আমেরিকা থেকে তিনি আর ফিরবেন না বলে জানা গেছে।

সৌদি মদদে গত পাঁচ বছর ধরে ইয়েমেনে সংঘাত ও সহিংসতার নেতৃত্ব দিচ্ছেন এই মানসুর হাদি। তাকে পুনরায় ক্ষমতায় বসানোর কথা বলেই গত কযেক বছর ধরে ইয়েমেনে আগ্রাসন চালাচ্ছে সৌদি আরব ও তার কয়েকটি মিত্র দেশ।

আমেরিকার বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে ইয়েমেনি গণমাধ্যম আজ (মঙ্গলবার) এ খবর দিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, মানসুর হাদি সৌদি রাজা সালমান বিন আব্দুল আজিজকে একটি চিঠি পাঠিয়ে বিদায় নিয়েছেন। চিঠিতে তিনি সার্বিক সহযোগিতা ও আতিথেয়তার জন্য রাজাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। ইয়েমেনের সংঘাতে মদদ দেওয়ার জন্যও তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

আরব অঞ্চলের একটি কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে আরব-আমেরিকা নামের একটি ওয়েবসাইট জানিয়েছে, মানসুর হাদি ওই চিঠিটি ইয়েমেনে নিযুক্ত সৌদি রাষ্ট্রদূতের কাছে জমা দিয়েছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, অসুস্থতার কারণে আর তার পক্ষে ইয়েমেনের দায়িত্ব পালন করা সম্ভব নয়। আমেরিকার ওহাইও অঙ্গরাজ্যের বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, হাদি ওই অঙ্গরাজ্যে প্রবেশ করেছেন এবং তার সঙ্গে বহু আত্মীয়-স্বজন রয়েছেন। তাদেরকে নিয়ে তিনি ওই অঙ্গরাজ্যেই বাস করবেন। সেখানে তার নিজস্ব বাড়ি রয়েছে।

২০১৫ সালের ২২ জানুয়ারি ইয়েমেনের প্রেসিডেন্টের পদ থেকে ইস্তফা দেন আব্দরাব্বু মানসুর হাদি। এরপর তিনি রাজধানী সানা থেকে প্রথমে দক্ষিণাঞ্চলী এডেনে এবং পরে সৌদি আরবে পালিয়ে যান। সৌদি আরব থেকেই তিনি সংঘাত-সহিংসতা পরিচালনা করছিলেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here