২০১৫ বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে এই নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরেই বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। সেবার কাঁদতে কাঁদতে মাঠ ছেড়েছিলেন প্রোটিয়ারা। বুধবার (১৯ জুন) বদলার ম্যাচ। বিশ্বকাপে ফের কিউইদের আমনে সামনে ফ্যাফ ডু প্লেসিসের দল। বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে ৩টায় বামিংহ্যামের এজভাস্টনে শুরু হলে দুদলের লড়াই।

ওয়ানডেতে কিউইদের থেকে প্রোটিয়াদের জয়ের পাল্লা ভারী। এখন পর্যন্ত ৭০টি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে তারা। যেখানে ৪১টি ম্যাচে জিতেছে আফ্রিকানরা। বিপরীতে কিউইদের জয় ২৪ ম্যাচে। আর ৫ ম্যাচ কোনো ফল হয়নি।

তবে বিশ্বকাপে আফ্রিকার তুলনায় জয়ের রেকর্ডরা বেশ ভালো কিউইদের। এখন পর্যন্ত ৭ দেখায় ৫ বারই প্রোটিয়াদের হারিয়েছে তারা। ১৯৯২ সাল থেকে প্রতিটি আসরেই মুখোমুখি হয়েছে এ দুদল।

এবারের বিশ্বকাপেও দুর্দান্ত খেলছে নিউজিল্যান্ড। এখন পর্যন্ত অপরাজিত তারা। ৪ ম্যাচের ৩টি তে জিতে ৭ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে কেন উইলিয়ামসন অ্যান্ড কোম্পানি।

অন্যদিকে, বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে হার দিয়ে মিশন শুরু করে আফ্রিকানরা। এরপর বাংলাদেশ ও ভারতের কাছেও হারে তারা। নিজেদের চতুর্থ ম্যাচটি উইন্ডিজের বিপক্ষে বৃষ্টির কারণে বাতিল হলে এক পয়েন্ট পায়। আর পঞ্চম ম্যাচে আফগানিস্তানকে হারিয়ে চলতি বিশ্বকাপে প্রথম জয় পায় প্রোটিয়ারা। পয়েন্ট টেবিলে তাদের অবস্থান আটে (৩ পয়েন্ট)!

দক্ষিণ আফ্রিকার সম্ভাব্য একাদশ : কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), হাশিম আমলা, এইডেন মার্করাম, ফ্যাফ ডু প্লেসি (অধিনায়ক), রেসি ভ্যান ডুসেন, ডেভিড মিলার, আন্দিল ফেলুকওয়ায়ো, ক্রিস মরিস, কাগিসো রাবাদা, ইমরান তাহির ও লুঙ্গি এনগিডি।

নিউজিল্যান্ড সম্ভাব্য একাদশ: মার্টিন গাপটিল, কলিন মুনরো, কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), রস টেইলর, টম ল্যাথাম (উইকেটরক্ষক), জিমি নিশাম, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, মিচেল স্যান্টনার, ম্যাট হেনরি, লোকি ফার্গুসন/ ইশ সোধি ও ট্রেন্ট বোল্ট।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here