আর্জেন্টিনার জন্য এটি ছিল বাঁচা-মরার ম্যাচ। তাতে আমন্ত্রিত দল কাতারকে বিদায় করে কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার-ফাইনাল নিশ্চিত করল দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

ব্রাজিলের পোর্তো আলেগ্রেতে রোববার স্থানীয় সময় বিকালে ‘বি’ গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে কাতারকে ২-০ গোলে হারায় আর্জেন্টিনা। ম্যাচের শুরুতেই প্রতিপক্ষের ভুলে লতারো মার্তিনেসের নৈপুণ্যে এগিয়ে যায় প্রতিযোগিতাটির ১৪ বারের চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচের শেষ দিকে পাওলো দিবালার পাসে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সের্হিও আগুয়েরো।

কলম্বিয়ার কাছে ২-০ গোলে হার দিয়ে কোপা আমেরিকা শুরু করা আর্জেন্টিনা দ্বিতীয় ম্যাচে প্যারাগুয়ের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছিল। এতে শেষ আট নিশ্চিত করা নিয়ে শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল দলটি।

তিন ম্যাচে এক জয়, এক ড্র ও এক হারে ৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়স্থানে থেকে কোয়ার্টার-ফাইনালে উঠলো আর্জেন্টিনা।

সালভাদরে ‘বি’ গ্রুপের আরেক ম্যাচে প্যারাগুয়েকে ১-০ গোলে হারিয়েছে আগেই গ্রুপ সেরা হওয়া নিশ্চিত করা কলম্বিয়া। তিন ম্যাচের তিনটিতেই জয় নিয়ে গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে শেষ আট নিশ্চিত করেছে কলম্বিয়া।

ম্যাচের আগে এদিন বেশ কিছু পরিবর্তন নিয়েই মাঠে নামে আর্জেন্টিনা। কোচ লিওনেল স্কালোনি লাউতারো মার্টিনেজ ও লিওনেল মেসির সের্জিও আগুয়েরোকে খেলান। এছাড়া প্রথমবারের মতো বদলী খেলোয়াড় হিসেবে খেলিয়েছেন পাওলো দিবালাকেও। রক্ষণেও পরিবর্তন, খেলান হুয়ান ফয়েথ ও রেনজো সারাভিয়াকে। তাতে সাফল্যও পায় দলটি।

ম্যাচের চতুর্থ মিনিটে গোল করার দারুণ সুযোগ পায় আর্জেন্টিনা। ডি-বক্সে কাতারের এক ডিফেন্ডার বল ঠেকাতে গেলে একবারে ফাঁকায় বল পেয়ে যান লাউতারো মার্টিনেজ। কিন্তু তার ভলি লক্ষ্যে থাকেনি। তবে কয়েক মুহূর্ত পরই কাতারের ডিফেন্ডার বাসাম হিশামের ভুলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। ডি-বক্সের ডান প্রান্ত থেকে বাঁ প্রান্তে সতীর্থকে পাস দিতে গেলে সে বল ধরে ফেলেন মার্টিনেজ। আর গোলরক্ষককে একা পেয়ে লক্ষ্যভেদ করতে কোন ভুল করেননি এ ইন্টার মিলানের এ স্ট্রাইকার।

২১তম মিনিটে মেসির পাস থেকে গোলরক্ষককে একা পেয়েও বাইরে মারেন আগুয়েরো। ৩৯তম মিনিটে গোলবারে আবারো ফাঁকায় বল পেয়ে যান আগুয়েরো। দুর্বল শটে জটলা থেকে বল পেয়েছিলেন মার্টিনেজ। কিন্তু জোরালো শট নিতে না পারলে তা ফিরিয়ে দেন কাতারের ডিফেন্ডাররা। ম্যাচের যোগ করা সময়ে সমতায় ফিরতে পারতো কাতার। ফ্রিকিক থেকে নেওয়া বাসাম আল রায়ির দারুণ শট বারপোস্টে লেগে বেড়িয়ে গেলে হতাশ হতে হয় এশিয়ার দলটিকে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে মেসির পাস থেকে দারুণ সুযোগ পেয়েছিলেন আগুয়েরো। তবে দুর্বল শটে বল তুলে দেন কাতারের গোলরক্ষকের হাতে। ৬০তম মিনিটে মেসির পাস থেকে ভালো সুযোগ পেয়েছিলেন আগুয়েরো। তবে শট নিতে দেরি করে ফেলায় সে শট ফিরিয়ে দেন এক ডিফেন্ডার। ৬১ মিনিটে দুই দফা কাতারকে রক্ষা করে করেন কাতার গোলরক্ষক সাদ আল সিব। আগুয়েরোর শট গোল লাইন থেকে ঠেকেই দেন তিনি। ৬৭ মিনিটে আগুয়েরোর আরও একটি প্রচেষ্টা রুখে দেন সাদ। বাঁ প্রান্ত থেকে দূরপাল্লার দারুণ শট ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন তিনি।

৭৩ মিনিটে অবিশ্বাস্য এক মিস করেন মেসি। তাগলিয়াফিকোর কাছ থেকে ছোট ডি-বক্সে বল পেয়ে উড়িয়ে মারেন পাঁচ বারের ব্যলন জয়ী এ খেলোয়াড়। ৮২তম মিনিটে কাতার গোলরক্ষককে পরাস্ত করতে পারেন আগুয়েরো। সতীর্থের পাস থেকে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে ডান প্রান্ত থেকে কোণাকোণি এক শটে লক্ষ্যভেদ করেন ম্যানসিটির এ তারকা। এরপরও বেশ কিছু সুযোগ পেয়েছিল আর্জেন্টিনা। তবে থেকে গোল আদায় করে নিতে না পারলেও কোয়ার্টার ফাইনালের টিকেট পায় দলটি।

মূলত দিনের অপর ম্যাচে কলম্বিয়া ১-০ গোলে প্যারাগুয়েকে হারালে সরাসরি গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত হয় আর্জেন্টিনার।

২৮ জুন মারাকানায় সেমি-ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ‘এ’ গ্রুপ রানার্স-আপ ভেনেজুয়েলার মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here