ইরানের বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা সত্ত্বেও তেহরানকে নতজানু করতে না পেরে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি মঙ্গলবার ধারাবাহিক টুইটার পোস্টে তার এ ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন।

ট্রাম্প তার এক টুইটার পোস্টে বাগাড়ম্বর করে লিখেছেন, ভালো ও সহানুভূতিশীল কথা ইরানি নেতৃবৃন্দের পছন্দ নয় তারা বরং শক্তি ও বলপ্রয়োগের ভাষা ভালো বোঝেন। ইরানের আকাশসীমা লঙ্ঘনকারী মার্কিন ড্রোন ভূপাতিত করার ঘটনায় নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করে ট্রাম্প হুমকি দেন, আমেরিকার রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী সামরিক বাহিনী এবং এই বাহিনীর পেছনে গত দুই বছরে দেড় ট্রিলিয়ন ডলার অর্থ খরচ করা হয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর থেকে এ পর্যন্ত বহুবার ইরানি জনগণকে ‘সন্ত্রাসী’ বলে অভিহিত করলেও এখন তার মুখ থেকে ইরানি জনগণের জন্য সহানুভূতি উথলে উঠেছে। নিষেধাজ্ঞা আরোপের মাধ্যমে ইরানি জনগণের জন্য খাদ্য ও ওষুধের মতো জরুরি পণ্য আমদানিতে বাধা দেয়ার কথা চেপে গিয়ে ট্রাম্প তার টুইটার পোস্টে আরো লিখেছেন, ইরানি জনগণ বিনা অপরাধে কষ্ট পাচ্ছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সাম্প্রতিক সময়ে একদিকে ইরানের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগ্রহ প্রকাশ করছেন এবং অন্যদিকে তেহরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যাচ্ছেন। গতকালও তিনি ইরানের সর্বোচ্চ নেতা, তার কার্যালয় ও ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র আট শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। এ সম্পর্কে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার মাধ্যমে আমেরিকা আলোচনার দরজা চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here