আফগানিস্তানকে বধ করে বেশ চাঙ্গাভাব বিরাজ করছে বাংলাদেশ শিবিরে। আগামী ২ তারিখের আগে কোনো ম্যাচ নেই মাশরাফিদের। সেমিফাইনালের দৌড়ে সেদিন এডজবাস্টনে আসরের অন্যতম ফেভারিট ভারতের মুখোমুখি তারা।

ফর্মের তুঙ্গে থাকা শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে জিততে পারবে কি বাংলাদেশ?

কারণ বিশ্বকাপে ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং সব ক্ষেত্রেই দ্যুতি ছড়াচ্ছে ভারতীয় দলের সদস্যরা। রোহিত শর্মা, কেএল রাহুল, বিরাট কোহলি থেকে একের পর এক বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানকে ধরাশায়ী করতে হবে।

তাদের আছে শক্তিশালী বোলিং লাইনআপও। বোলিংয়ে পেস আক্রমণে বুমরাহ, সামী, ভুবনেশ্বর তো আছেনই তাদের এছাড়াও কুলদীপ যাদব ও ইয়ুজবেন্দ্র চাহালের মতো দুই রিস্ট স্পিনারেও সমৃদ্ধ ভারতীয় দল।

আর সে কারণে ভারতকে হারানো সম্ভব হবে কিনা এমন প্রশ্নে অনেকে আমতা আমতা করলেও বাংলাদেশ দলের বোলিং কোচ সুনীল যোশী জানালেন, প্রত্যেক দলেরই শক্তি এবং দুর্বলতার জায়গা আছে। আমি ভারতীয় দলে খেলেছি। সেই দলকে খুব কাছ থেকেই দেখেছি। আমি জানি তাদের বিপক্ষে কোথায় বল করতে হবে। তাই ভারতের বিপক্ষে জেতাটা তেমন কষ্টকর হবে না।

এজন্য বাংলাদেশ দলের স্পিন শক্তি সে সাফল্য এনে দিতে পারবে বলে বিশ্বাস করেন তিনি। কেননা বিশ্বকাপের শুরু থেকেই ব্যাটিংটা দারুণ হলেও বোলিংয়ে তেমন ভালো করছিলেন না টাইগাররা। পেস-স্পিন কোনো বিভাগই আশানুরূপ পারফরম্যান্স উপহার দিতে পারছিল না।

কিন্তু আফগানিস্তানের বিপক্ষে টাইগার বোলারদের জ্বলে ওঠাই যেন ভারত জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছে বলে বিশ্বাস করেন যোশী।

কোচ সুনীল যোশী বলেন, একজন স্পিন কোচ হিসাবে আমি এর চেয়ে বেশি চাইতে পারি না। সন্দেহাতীতভাবে সাকিব একজন কিংবদন্তি। এটা অনেক বড় গর্বের বিষয় যে, বাংলাদেশে সাকিবের মতো একজন খেলোয়াড় আছে। ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং, তিন বিভাগেই সে ধারাবাহিক।

তিনি মনে করেন সাকিবের ঘূর্ণি জাদু ভারতের ব্যাটসম্যানকে দারুণ ভোগাবে।

এছাড়া যাদব-চাহালদের মোকাবেলা করতে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের খুব একটা কষ্ট হবে না বলে মনে করেন তিনি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here