‘ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষায় দেশকে মাদকমুক্ত করেই ছাড়ব’ বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এমপি।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) উদ্যোগে মাদক, জঙ্গি ও আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক কমিউনিটি পুলিশিং মহাসমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, যাতে আমরা পথ হারিয়ে না যাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করার পর থেকে প্রশাসন শক্ত অবস্থান নিয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘মাদকে যারা আসক্ত হয়েই গেছেন, তাদের জন্য আমরা নিরাময় কেন্দ্র করেছি। সরকারি-বেসরকারিভাবেও বহু মাদক নিরাময় কেন্দ্র রয়েছে। আপনার ছেলে-সন্তান, আপনার ভাই যদি মাদকাসক্ত হয়ে যায়, তা গোপন রাখবেন না। তাদের নিরাময় কেন্দ্রে নিয়ে যান। তাদের দিয়ে আসুন, তারা ভাল পথে চলে আসবে। মাদকের বিরুদ্ধে সবাই মিলে আমরা ঘুরে দাঁড়িয়েছি। না হলে আমরা ২০৪০ এ যেতে পারবো না।’

‘এই বিষয়ে সকলেই যথাসাধ্য সহযোগিতা করবেন, এগিয়ে আসবেন।  মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গি, ইভিটিজিং, যেগুলো নাকি সমাজের বিষের দাওয়াই। সেগুলো থেকে আমাদের সমাজকে রক্ষা করার ব্রত নিয়েছেন।  মাদককে না বলুন, ইভিটিজিংকে না বলুন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসকে না বলুন।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী সবসময় আমাদের বলেন-সারা বাংলাদেশে ঘুরে বেড়াও, মাদক যাতে বন্ধ হয়। মাদক ব্যবসায়ীরা যাতে আর মাদক আনতে না পারে, সেই ব্যবস্থাই করো। ইতোমধ্যে দেখেছেন, একটা একটা মাদকব্যবসায়ী আত্মসমর্পণ করেছে। নির্বাচনের পর এই দৃশ্যও দেখেছেন চরমপন্থীদের মধ্যে কয়েকজন আর নাই। র‌্যাব ও পুলিশের মাধ্যমে মাদকের বড় বড় চালান ধরেছি। মাদক ব্যবসায়ীরা আপনাদেরই সন্তান, আপনাদেরই ভাই। অবশ্যই মাদক ব্যবসায়ীরা এসব করা থেকে মত পাল্টাবে। সমাজ থেকে মাদক দূর করতে সহযোগিতা করুন। আপনারা সহযোগিতা করুন। তারা অবশ্যই এসব থেকে বেরিয়ে আসবে। আর যদি না করে, তার পরিণাম কি হবে তা ইতোমধ্যে জেনেছেন। মাদকের ভয়ংকর রূপ থেকে আমরা যাতে দেশ রক্ষা করতে পারি, সেই জন্য কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সহযোগিতা প্রয়োজন। ’

শিক্ষা-উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, অনেক মাদক ব্যবসায়ীরা ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছে ধরনা দেয়। তাদের প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না। তাদের বিষয়ে সতর্ক হতে হবে।  মাদকের বিরুদ্ধে সরকর শক্ত অবস্থানে রয়েছে। বর্তমানে প্রশাসনের সবাই মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করছে।

সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় মূখ্য আলোচক ছিলেন ড. মো. জাবেদ পাটোয়ারী।

সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, চট্টগ্রাম-১০ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মো. আফছারুল আমিন,চট্টগ্রাম ১১ আসনের সংসদ সদস্য এম এ লতিফ, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here