সংযুক্ত আরব আমিরাতের বাণিজ্যকেন্দ্র দুবাইয়ের শাসক শেখ মুহাম্মাদ বিন রাশিদ আল-মাখতুমের স্ত্রী প্রিন্সেস হাইয়া আল-হুসেইন বিপুল পরিমাণ অর্থ নিয়ে পালিয়ে গেছেন। তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হওয়ার পর তিনি তিন কোটি ১০ লাখ ব্রিটিশ পাউন্ড নিয়ে চলে যান।

প্রিন্সেস হাইয়া আল-হুসেইন হলেন জর্দানের রাজা দ্বিতীয় আবদুল্লাহর বৈমাত্রেয় বোন। বলা হচ্ছে- প্রথমে তিনি জার্মানিতে পালিয়ে যান এবং সেখান থেকে তালাক চান। জার্মানিতে তিনি রাজনৈতিক আশ্রয়েরও আবেদন করেছেন। ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইল এ খবর দিয়েছে।

৪৫ বছর বয়সী প্রিন্সেস হাইয়াকে দুবাই থেকে পালিয়ে যেতে দৃশ্যত সাহায্য করেছেন জার্মানির একজন কূটনীতিক। খবরে বলা হচ্ছে- তিনি যাওয়ার সময় তার সাত বছর বয়সী ছেলে যায়েদ ও ১১ বছর বয়সী মেয়ে আল-জালিলাকে সঙ্গে নিয়ে গেছেন। স্ত্রী পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় ইনস্টাগ্রামে ক্ষোভ জানিয়ে পোস্ট দিয়েছেন শেখ রাশিদ আল-মাখতুম।

মেইলের খবরে দাবি করা হয়েছে, দুবাইয়ের শাসক ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট শেখ রাশিদ আল-মাখতুম তার স্ত্রীকে ফেরত দেয়ার অনুরোধ করলেও জার্মান সরকার তা প্রত্যাখ্যান করেছে। এ নিয়ে জার্মানি ও আরব আমিরাতের মধ্যে কূটনৈতিক টানাপড়েন দেখা দিয়েছে।

২০০৪ সালে পিন্সেস হাইয়ার সঙ্গে ২০০৪ সালে শেখ রাশিদ আল-মাখতুমের বিয়ে হয়। ১৫ বছর পর তার স্ত্রীর এভাবে পালিয়ে যাওয়া দুবাইয়ের শাসকের জন্য বড় বিপর্যয় হিসেবে দেখা হচ্ছে। এর আগে, গত বছর তার অন্য স্ত্রীর মেয়ে ৩৩ বছর বয়সী প্রিন্সেস লাতিফা বিনতে মুহাম্মাদ মাখতুম দেশ থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় ভারতীয় উপকূলে ধরা পড়েন। মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলে আসেছ, তাকে দুবাইয়ে আটকে রাখা হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here