সম্প্রতি টলিউড অভিনেত্রী ও সংসদ সদস্য নুসরাত জাহানের বিয়ে নিয়ে কট্টরপন্থীদের মাঝে তুমুল বিতর্ক দেখা দেয়। এ বিষয়ে নুসরাতের মতই হয়েছেন বিব্রত বলিপাড়ার আরেক সাংসদ ও তারকা অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। অবশেষে কট্টরপন্থীদের ফতোয়ার বিরুদ্ধে মুখ খুললেন মিমি।

তিনি বলেছেন, ‘প্রত্যেকেরই একটা ব্যক্তিগত জীবন আছে৷ সেই জীবনকে সম্মান জানানো উচিত। আমরা যাই করি সেটা নিয়েই এখন বিতর্ক হচ্ছে। কোনও ভাল কাজ করলেও দেখছি বিতর্কে জড়িয়ে পড়ছি। তাই বলছি, যে যা খুশি বলুক আমরা সেসব আমলে নিই না।’

১৯ জুন ব্যবসায়ী নিখিল জৈনকে বিয়ে করেন নুসরাত। দেশে ফিরে ২৫ জুন লোকসভায় সাংসদ হিসেবে শপথগ্রহণ করেন। সিঁদুর ও মঙ্গলসূত্র পরে শপথ নিতে গিয়েছিলেন বসিরহাটের সাংসদ নুসরাত। এ নিয়ে কঠোর মন্তব্য করেছেন উত্তরপ্রদেশের জামিয়া-শেইখ-উল-হিন্দ মাদ্রাসার প্রধান ইমাম মুফতি আসাদ কাজমি।

তিনি বলেন, ‘নুসরাত যা করছেন তা ইসলাম বিরোধী। এখন উনি এমন একজনকে বিয়ে করেছেন যিনি মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত নন। লোকসভায় এসেছেন সিঁদুর, মঙ্গলসূত্র পরে। ইসলামে স্পষ্ট বলা হয়েছে, একজন মুসলিম শুধু মুসলিমকেই বিয়ে করতে পারেন। আমরা এই বিয়ে মানি না।’

এ বিষয়ে মিমি বলেন, ‘নুসরাত ধর্মনিরপেক্ষতার মুখ। এই ফতোয়া নারীজাতির কাছে অপমানজনক। ইমামের ফতোয়ার জবাবে নুসরাত বলেন, ‘আমরা নতুন, প্রগতিশীল ভারতে বাস করি, যেখানে সব ধর্ম ও সংস্কারকে শ্রদ্ধা করা হয়। ঈশ্বরের নামে ভেদাভেদ কেন? হ্যাঁ, আমি একজন মুসলিম। আমি ধর্মনিরপেক্ষ ভারতবর্ষের নাগরিক। আমার ধর্ম আমাকে মানুষের মধ্যে ভেদাভেদ করতে শেখায় না।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি বাংলায় কথা বলব, সিঁদুর পরব। মন যা বলে তাই করব। ধর্মের নামে কে কী বলল তাতে আমার যায় আসে না। এটা আমার জীবন। আমি ঠিক করব কী করব না করব। আমি যথেষ্ট শিক্ষিত। একজন আধুনিক ভারতীয় নারীর হিসেবে নিজের জীবন চালাব।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here